দরকারী তথ্য

Best Used Car To Buying Tips In Bangladesh – পুরাতন গাড়ি যাচায়ের কৌশল

পুরাতন গাড়ী – Used Car কেনার পর কিছু দিন শান্তিতে গাড়ি চালানোর জন্য আপনাকে কেনার আগেই সিন্ধান্ত নিতে হবে। কারণ কিনে পরে যদি অনেক খরচ করেন তবুও অতটা সুবিধা করতে পারবেন না।

ব্যবহৃত গাড়ী- Used Car কেনা একটি জটিল কাজ, যদি আমরা না জানি যে এটি কোনো সন্ত্রাসী চালাতো কি না ? বা কোনো মামলা আছে কিনা ? এছাড়াও গাড়ির নির্ভরযোগ্যতা ও উৎপাদনশীলতা, বীমা তো রয়েছেই।



 পৃথিবীতে গাড়ি বিশেষজ্ঞদের মধ্যে সর্ব শ্রেষ্ট ডেভিড আন্ডারকফ্লারের মতে

” আপনি কোনো ব্যবসায়ী, ডিলার, ব্যক্তি বা কোনো অনুমোদিত ব্যবসায়ীর কাছ গাড়ি কিনছেন। তবুও, আপনার ব্যবহৃত গাড়ি – Used Car সম্পর্কে কিছুটা সাধারণ জ্ঞান থাকা ভালো যাতে আপনি দেখে শুনে তা কিনতে পারেন”

 ব্যবহৃত গাড়ী কেনার গাইড-

আমি বিশাল বিবরণে যাওয়ার আগে একটু বলি যে  ব্যবহৃত গাড়ী – Used Car কেনার আগে দুটি প্রধান নিয়ম মাথায় রাখবেন প্রথমটি, গাড়ি আপনার মাথা দিয়ে কিনুন কিন্তু হৃদয় দিয়ে নয়, এবং দ্বিতীয়টি, যদি আপনি কোনও বিষয়ে নিশ্চিত না হতে পারেন তবে ফিরে চলে আসুন। তারপরেও, এটি অপরিহার্য বিষয় যে, সেকেন্ড হ্যান্ড ( Used Car ) গাড়ি কেনার আগে আপনি ব্যবহৃত গাড়ী এবং গাড়ির দাম নিয়ে ভালো মতো গবেষণা করে নিন। সেকেন্ড হ্যান্ড গাড়িগুলির সমস্যা গুলি তাত্ক্ষণিক সার্ভিসিং করতে হয়। টায়ার, ব্যাটারি এবং অন্যান্য যন্ত্রাংশ পাল্টানোর জন্য অতিরিক্ত খরচের বিষয়টি অবশ্যই আপনাকে মাথায় রাখতে হবে। এ সম্পর্কে আরও কিছু জানতে আপনি ” বাংলাদেশের শীর্ষ পাঁচটি সর্বাধিক বিক্রিত গাড়ি “এই আর্টিকেল টি দেখতে পারেন।

অল্প কথায় Used Car কেনার সময় লক্ষণীয় সকল বিষয়ের এর একটা তালিকা

আপনি নীচের প্রতিটি বিষয় পরবর্তীতে আরও বিশদ পাবেন

১. গাড়ির বডি: গাড়ির বাইরের চারপাশটা এবং নীচে চেক করুন।

২. ইঞ্জিন: ছিদ্র, তেলের স্তর, গ্যাস কেটের অবস্থা এবং গাড়ির ধোঁয়া পরীক্ষা করুন।

৩. গিয়ারবক্স এবং ক্লাচ: গিয়ার পরিবর্তনের বিষয়টি খেয়াল করুন। ক্লাচ কামড়ানোর পয়েন্টটি পরীক্ষা করুন।   

৪. রাবারের অবস্থা: চাকা, টায়ার ও অন্যান্য রাবারের গভীরতা ও অবস্থা দেখুন।

৫. অভ্যন্তরীণ: বুট, আসন এবং গাড়ির ভেতরের ফ্যাব্রিক ছাড়াও ড্যাশ বোর্ড এবং ইলেকট্রনিক্স কাজ গুলি ভালভাবে পরীক্ষা করুন।

৬. ফ্রেম সমস্যা: ফ্রেমের সমস্যাও দেখা উচিত অর্থাৎ গাড়িটি কি মাটিতে বসে আছে না কি কোনো দিকে হেলে আছে ?

৭. পরীক্ষা মূলক চালান: যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনি মানসিক ভাবে স্যাটিসফাইড না হবেন ততক্ষন পর্যন্ত চালান।

৮. কাগজ পত্র পরীক্ষা: গাড়ির সকল ইতিহাস এবং অন্যান্য সকল কাগজপত্র পরীক্ষা করুন।



ব্যবহৃত গাড়ী চেকলিস্ট

পুরাতন গাড়িতে কিছু সমস্যা থাকতেই পারে সেক্ষেত্রে অবশ্যই বিক্রেতা তা ঠিক করে রাখবে। তা না হলে গাড়ি কেনার পর সকল খরচ শেষে আবারো নতুন করে গাড়ি মেরামতের জন্য টাকা আপনার পকেট থেকে চলে যেতে পারে।

আপনি যদি ব্যক্তিগত ভাবে গাড়ি ক্রয় করেন তবে আপনি নিজে সম্ভাব্য সমস্ত সমস্যা চিহ্নিত করার জন্য দায়বদ্ধ থাকবেন, পরে যেয়ে অন্য কাওকে দোষারোপ করতে কিন্তু পারবেন না। সে ক্ষেত্রে যেহেতু গাড়ি সম্পর্কিত যেকোন ধরণের প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করার বিষয়টি আপনার হাতে রয়েছে তাই সকল বিষয় পরিষ্কার করে নিবেন। তবে একজন ডিলারের কাছ থেকে গাড়ি কেনা আপনাকে কিছু নির্দিষ্ট আইনী অধিকার দেয় এবং সে ক্ষেত্রে অধিকাংশ সময় ডিলার অনেক বিষয়কে অস্বীকার করতে পারে না। আরো বিস্তারিত ভাবে আসুন জানি……….

সম্পূর্ণ গাইড:

 একটি ব্যবহার করা গাড়ী একজন অনুমোদিত ডিলারের দোকান থেকে কেনা সবচেয়ে নিরাপদ এবং সহজ।

তাদের অফার গুলিতে গাড়িগুলির পুরো ইতিহাস থাকবে, তারা গাড়ির উপর একটি ব্যাপক পরীক্ষা স্বভাবত করে থাকে এবং তাদের উপর আপনি নির্ভর করতে পারেন। এমনকি তাদের কাছ থেকে ওয়ারেন্টিও আপনি পেতে পারেন এবং ব্রেকডাউন কভারও আসতে পারে।

দিনের আলোতে এবং ভাল আবহাওয়ায় সাবধানতার সাথে গাড়িটি পরীক্ষা করুন

বৃষ্টি গাড়ির যেকোনো পেইন্ট সমস্যাকে লুকিয়ে রাখতে পারে, যেমনটি করে স্ট্রিটল্যাম্প বা টর্চলাইট এর ক্ষেত্রে, তাই ভালো আবহাওয়ায় দিনের বেলায় গাড়িটি পরীক্ষা করার চেষ্টা করুন।

গাড়ির ব্র্যান্ড ভ্যালু

স্বাভাবিক ভাবেই পুরাতন গাড়ির ক্ষেত্রে ভালো ব্র্যান্ড এর গাড়ি প্রথম পছন্দ হয়ে থাকে।মনে রাখবেন বাংলাদেশের সবথেকে জনপ্রিয় ব্র্যান্ড এর নাম টয়োটা। এর পর রয়েছে হোন্ডা, মিতশুবিশি, নিশান, মাজদা সহ আরো কিছু জাপানি গাড়ি নির্মাতা-প্রতিষ্ঠানের গাড়ি। জনপ্রিয় ব্র্যান্ড এর রিসেল ভ্যালু ভালো হয় আবার গাড়ির যন্ত্রাংশও অনেক বেশি সহজলভ্য হয়। তাই যন্ত্রাংশ এর দামটাও একটু কম হয়। আমাদের এই সাইট এ বাংলাদেশের সব থেকে বেশি বিক্রি হয় এমন গাড়ির একটা লিস্ট দেওয়া হলো, আপনি পড়তে পারেন।

এই পর্যায়ে আপনি গাড়ীর বডি চেক করে দেখতে পারেন

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars
olio24hours

প্রথমেই আপনি গাড়িটির চার পাসটা ঘুরে দেখতে পারেন, প্রত্যেক গাড়িতেই কোনো না কোনো বর্ডার দেখতে পাবেন। যদি ওই সকল জায়গায় আঘাত পায় এবং তা পরবর্তীতে মেরামত করা হয় তবে ওই বর্ডার গুলা অরিজিনাল বর্ডারের মতো হবে না, একটু উঁচু নিচু হবে।

 মূলত, আপনি পুনর্নির্মাণ বা প্রতিস্থাপন প্যানেলগুলির এমন কোনও চিহ্ন খুজবেন যা গাড়িটিতে কোনও দুর্ঘটনা হয়েছিল তা বুঝতে সাহায্য করবে। গাড়ীর ওই Design গুলি দরজা গুলিতেও থাকতে পারে। প্যানেলের ফাঁকা এবং দরজা সীল পরীক্ষা করুন।

আপনার পছন্দের গাড়ীর যতটা সম্ভব বাইরে, নীচে এবং যেখানে সম্ভব, ভিতরের পুরানো মেরামতগুলি যথাযথভাবে সম্পন্ন হয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করুন। এই সমস্যা গুলি গাড়ির অতীতের একটি ছবি তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে।

তাছাড়াও গাড়ির সামনে ও পেছনের প্রধান গ্লাস গুলোতে কিছু অরিজিনাল স্টিকার লাগানো থাকে, যদি কখনো তা পরিবর্তন করা হয় তবে ওই অরিজিনাল স্টিকার আপনি দেখতে পাবেন না।

সমস্ত ধাতব বডি প্যানেলের মরিচা পরীক্ষা করুন

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars

মরিচা পেইন্টের নীচে বুদবুদ দিয়ে শুরু হবে, কিন্তু সেটিকে না পরিষ্কার করা ছাড়াই যদি এটির উপরে পেইন্ট করে বন্ধ করা হয় তবে শেষ পর্যন্ত মরিচা ধরে রাখতে পারে, তাই এটি ভালো মতো বুঝে নেওয়া ভালো। অন্যদিকে মরিচা মেরামত না করা জায়গা গুলা রাস্তার পাথরের নুড়ির আগাতে আরো বাড়তে পারে।



 দুর্বল ভাবে যেকোনো মেরামত পরবর্তীতে আপনার ভুগান্তির কারণ হতে পারে, তাই খুব গুরুত্ব সহকারে এটি কিন্তু পরীক্ষা করবেন। গাড়ি পরীক্ষা করবেন দিনের বেলা, উজ্জ্বল আলোতে বডি প্যানেলগুলি অভিন্ন রঙের রয়েছে কিনা তা পরীক্ষা করুন এবং গ্লাস, রাবার সিল এবং প্লাস্টিকের ট্রিমগুলিতে ‘ওভারস্প্রে’ করা আছে কিনা খুঁজে দেখুন।

প্রতিটি প্যানেলের মধ্যে ফাঁকা গুলি একবার ভালো মতো দেখুন। ব্যবধানের পরিমাণটি পুরো গাড়ির চারদিকে একরকম হওয়া উচিত। যদি তা না হয় তবে যতটুকু সম্ভাবনা হ’ল এটিকে প্রতিস্থাপন করা হয়ে ছিল।

গাড়ির সামনের এবং পিছনের দিকে বিশেষ মনোযোগ দিন, কারণ এটি কম-গতির আঘাত গুলির প্রমান বহন করে। বুটের ভেতরের কার্পেটটি উপরে তুলুন। নীচের প্যানেলগুলি সোজা এবং জং মুক্ত হওয়া উচিত। বোনেটের নীচের বেন্ট প্যানেলগুলির এবড়ো থেবড়ো অবস্থা গাড়ির পূর্বের ফ্রন্ট-এন্ড ক্রাশ নির্দেশ করতে পারে।

ইঞ্জিনের কি কি দেখবেন এবং কেন

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars
olio24hours

ইঞ্জিনটি হৃৎপিণ্ডের মতো, এবং সেটি অনেক ধরণের উপাদান দ্বারা তৈরী করার হয়, ভিতরে থাকা উপাদানগুলির সংখ্যা এবং তারা যে কঠোর সহনশীলতার মাধ্যমে পরিচালিত হয় তার রক্ষণাবেক্ষণ জরুরি। পূর্বের মালিক কি পরিমান যত্ন করতো তা কিছু বিষয় খেয়াল করলেই বুঝতে পারবেন। গাড়িটির ইঞ্জিন, সাসপেনশন, হুইল অ্যালাইনমেন্ট, চেসিস কন্ডিশন, আন্ডার বডি চেক, আপনাকে কিছুটা ধারণা দিবে

লিকস

সমস্যা খুঁজে বের করার সবচেয়ে সহজ বিষয়গুলির একটি হ’ল ছিদ্রি। অনেকগুলি তরল রয়েছে যা ইঞ্জিনের চারপাশে এবং এর নীচে চলাচল করে এবং এটি ভাল-ভাবে কর্মক্ষম রাখতে গাড়িটিতে  ছিদ্রি থাকা উচিত নয়।

আপনি যখন ব্যবহৃত গাড়ীটি দেখেন, তেল ফুটো হওয়ার লক্ষণগুলির নীচে পরীক্ষা করুন। যদি গাড়ীর নীচে টারম্যাকে তেল থাকে বা গাড়ীর নীচে প্রচুর পরিমাণে স্লাজ পড়ে থাকে তবে কোথাও ফুটো আছে বোঝা যায়। ইঞ্জিনের নীচে স্লাবটিতে রাস্তার ময়লা ইঞ্জিনে তৈলাক্ত অংশে ময়লার মতো লেগে থাকে।

বোনেট খুলুন এবং অন্যান্য ছিদ্রির জন্য ইঞ্জিনের চারপাশে পরীক্ষা করুন। তেল ফুটো সাধারণত বাদামি বা, ইঞ্জিনের তেলটি পুরানো, কালো হয় তবে এমন কিছু তরল রয়েছে যা ঝরে যাওয়ার ঝুঁকিতে থাকে। কুল্যান্ট (এন্টিফ্রিজে নামেও পরিচিত) সাধারণত সবুজ, গোলাপী বা হলুদ হয় তবে গিয়ারবক্স এবং পাওয়ার স্টিয়ারিং তরল লালচে বাদামি। গিয়ারবক্স এর তরলটি বেশ ঘন, অন্যদিকে পাওয়ার স্টিয়ারিং তরল পাতলা।

আপনি যদি কোথাও কোনও সমস্যা দেখেন তবে আপনার কাছে কয়েকটি রাস্তা খোলা রয়েছে। এটিকে কেনার জন্য সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে কথা বলে নিতে পারেন যে, ওই সমস্যা গুলি বিক্রেতা ঠিক করে দিবেন কিনা, অথবা ওই সমস্যা ঠিক করার খরচ মূল দামের সাথে হিসাব করা হবে কিনা ? যদি কোনো প্রস্তাবেই কাজ না হয়, তবে আপনি ওখান থেকে চলে আসুন এবং অন্য গাড়ি দেখুন।

তেল

তেল চেক করা সাধারণ গাড়ি রক্ষণাবেক্ষণ এবং কেনার সময় ভুলে যাওয়া উচিত নয়। ডিপস্টিকের একটি সঠিক স্তর রয়েছে। তেলটি রঙিন নয় বা ভুল ধারাবাহিকতা দেখাচ্ছে কি না তা খেয়াল করুন।

হেড গ্যাসকেট

হেড গ্যাসকেট একটি পাতলা অংশ যা ইঞ্জিনের নীচের এবং উপরের অংশগুলির মধ্যে বসে থাকে (এটি ইঞ্জিন ব্লক এবং সিলিন্ডার হেড হিসাবেও পরিচিত), এবং শীতল তেলকে ইঞ্জিনের সিলিন্ডারে প্রবেশ করতে বাধা দেয়।

এটি ধুয়া নিষ্কাশন, শক্তি হ্রাস বা এটির খারাপ আচরণ   থেকে ইঞ্জিনে বিভিন্ন সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে, তাই এটি পরীক্ষা করা গুরুত্বপূর্ণ।

ইঞ্জিনটি ভালো কিনা তা পরীক্ষা করুন এবং ইঞ্জিনের উপর থেকে তেল ক্যাপটি সরান। যদি আপনি ঐটার সাথে সাদা বা হালকা বাদামী কাদা দেখেন তবে হেড গ্যাসকেটে সমস্যা আছে বলে ধরে নিতে পারেন। এই মুহুর্তে, ওই গাড়ি কেনার সিদ্বান্ত থেকে সরে আসা সঠিক হবে, কারণ ওই সমস্যাটি অন্যান্য কী কী ক্ষতি করেছে তা জানা মুশকিল।

ধোঁয়ার রঙ

ইঞ্জিনটি চালু করুন এবং গাড়ির পিছনে যান। ইঞ্জিন শুরু করার সময়  সামান্য ধোঁয়া সাধারণত গুরুতর কিছু নয়, তবে এটি কয়েক মিনিট পরেও যদি থেকে থাকে তবে এটি একটি বড়ো সমস্যা।

নীল ধোঁয়া মানে ইঞ্জিনে তেল জ্বলছে। তার মানে কোনওভাবে তেল সিলিন্ডারে ঢুকছে এটি হেড গ্যাসকেট বা অভ্যন্তরীণ ইঞ্জিন সীলগুলির সাথে সমস্যা চিহ্নিত করতে পারে।

অতিরিক্ত সাদা ধোঁয়া হেড গসকেটের সমস্যার দিকে ইঙ্গিত করে। কালো ধোঁয়া সাধারণত ইঞ্জিনে অত্যধিক জ্বালানি পুড়ে যাওয়ার কারণে ঘটে। সাদা বা নীল ধোঁয়ার কারণগুলি মেরামত করা সহজ।

আপনি যদি এমন কোনো গাড়ি কিনতে যান যা কোনও রঙের ধোঁয়া নিঃসরণ করে, তবে একজন বিশেষজ্ঞ দ্বারা পরীক্ষা করে নেওয়া উচিত।

তবে মনে রাখবেন ইন্জিনের মাইনর কাজ বলে কিছু নেই, অর্থাৎ কোনো সমস্যা থাকলে পুরোপুরি মেরামত করা খুবই কঠিন। ঐলাইনে না যাওয়াই ভালো। সবচেয়ে ভালো হয় ইন্জিন ফেলে দিয়ে নতুন (রিকন্ডিশন) ইন্জিন লাগিয়ে নেয়া।

এখন দেখি, গিয়ারবক্স এবং ক্লাচ কিভাবে পরীক্ষা করে

গিয়ারবক্স এবং ক্লাচ চেকগুলি আপনি পরীক্ষা করে দেখতে পারেন। ম্যানুয়াল এবং স্বয়ংক্রিয় গিয়ারবক্স রয়েছে, তবে বিভিন্ন ধরণের স্বয়ংক্রিয় গিয়ারবক্স রয়েছে যা বিভিন্ন ভাবে আচরণ করতে পারে। গাড়ীর যেই গিয়ার বক্স থাকুক না কেন, এটি সমস্ত গিয়ারগুলি মসৃণ এবং নিঃশব্দে নিযুক্ত করা উচিত। যদি এটি না হয় তবে সমস্যা নেই।

একটি ম্যানুয়াল গাড়িতে, ক্লাচ কামড় দেওয়ার পয়েন্ট – ক্লাচ প্যাডেল ছেড়ে দেওয়ার সময় গাড়ীটি আপনা আপনিই চলতে শুরু করে মনে করেন – তবে এটি প্যাডেলের মাঝখানে হওয়া উচিত। আপনাকে যদি পুরোপুরি নিচে যেতে হয় তবে ক্লাচের দিকে খেয়াল করা প্রয়োজন হবে। এটি কোনো বড়ো সমস্যা নয়। এটি প্রতিস্থাপন করা যেতে পারে।

গাড়ির গিয়ার সহজেই পরিবর্তন করতে পারার কথা। যদি শক্ত হয়ে থাকে বা আপনার একটু কষ্ট হয় তবে তা একটি সমস্যার দিকে ইঙ্গিত করে।



আপনি যে কোনও ধরণের অটো গিয়ারবক্স পরীক্ষা করে দেখছেন, আপনি সমস্ত গিয়ার জড়িত তা নিশ্চিত করুন, ‘কিকডাউন’ কাজ করে তা নিশ্চিত করুন – ফাংশন যা গিয়ারগুলি পরিবর্তন করে যখন আপনি মেঝেতে এক্সিলারেটর প্যাডেল টিপুন। গাড়ির যদি ম্যানুয়াল মোড থাকে তবে স্টিয়ারিং হুইল-মাউন্টড গিয়ারশিফ্ট প্যাডেলস বা গিয়ারস্টিকের ম্যানুয়াল অপারেশন দ্বারা চালিত হয়, এটি সঠিকভাবে কাজ করে কিনা তা নিশ্চিত করার চেষ্টা করে দেখুন।

এটি মনে রাখা দরকার যে সিভিটি গিয়ারবক্সগুলি আসলে গিয়ার পরিবর্তন করে না, যদিও কিছু গাড়িতে একটি ‘গিয়ার শিফট’ ফাংশন রয়েছে যা গিয়ার পরিবর্তন করার ক্রিয়াকে নকল করে।

পুরানোর গাড়ির একটা বেশ বড়ো সমস্যা রয়েছে, তা হচ্ছে আপনি নিশ্চিন্তে রাস্তায় ঘুরতে পারবেন না, যে কোনো সময় নস্ট হবার টেনশনে থাকতে হবে। সে ক্ষেত্রে গাড়ি খুব কম চলে, সাধারণতো গ্যারেজেই থাকে তার থেকে প্রতিদিন রাস্তায় বের হয় এমন গাড়ি রাস্তায় বন্ধ হবার সম্ভাবনা কম থাকে। আরো জানি……..

চলুন চাকা এবং টায়ার পরীক্ষা করি

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars
olio24hours

জল, নুন, রাস্তার কুঁকড়ে যাওয়া এবং গ্রিটের কারণে গাড়ির চাকাগুলির দিকে বিশেষভাবে ঠোঁটের ধারগুলি বিশেষভাবে মনোযোগ দিন এবং গাড়ির চাকাগুলিও দেখুন – উভয় পক্ষের দরজার নীচে যে প্যানেলগুলি রয়েছে।

চারটি চাকা পরীক্ষা করুন, প্রতিটি চাকার ক্ষতির অবস্থা দেখুন। কার্বস্টোন থেকে গ্রেজগুলি সাধারণ, এবং সাধারণত কোনও গুরুতর সমস্যা হয় না, তবে যে চাকাগুলি বাঁকানো বা রিমগুলিতে বড় ডেন্ট থাকে তাদের মেরামত বা প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হবে।

সমস্ত টায়ারও পরীক্ষা করে দেখুন। এগুলি কাট, বিভাজন, গেজ বা বালজ থেকে মুক্ত হওয়া উচিত; যদি আপনি কোনও একটিও দেখতে পান তবে তাদের প্রতিস্থাপনের প্রয়োজন হবে। পুরো টায়ারের চারদিকে কমপক্ষে ১.৬ মিমি গভীর হওয়া উচিত।

অসম টায়ার: যদি টায়ারের একপাশে অন্যটি থেকে বেশি ক্ষয় হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে এটি চাকা বা সাসপেনশন অ্যালাইনমেন্টকে ইঙ্গিত করতে পারে। এটি ক্রাশের কারণে বা কেবল দ্রুত গতিতে কোনও গর্তে আঘাত হানার কারণে হতে পারে তবে এটি ঠিক করতে হবে। তা ছাড়াও টায়ারের ভেতরে যে খাঁজ গুলো থাকে তা যদি খুব বেশি ক্ষয় হয়ে সমান হয়ে যায়, তবে অবশই পাল্টাতে হবে, আর একটা কথা আপনি মনে রাখবেন সাধারনত ৪টা টায়ার পরিবর্তন করতে (চাইনিজ টায়ার) প্রায় ২০,০০০ টাকার বেশি খরচ হবে।

আসুন গাড়ির ভেতরটা ভালো মতো দেখি

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars

কোনও গাড়ির অভ্যন্তরের অবস্থা গাড়ির মাইলেজটি সঠিক কিনা তা বোঝাতে সহায়তা করতে পারে। ২০,০০০ মাইল চলেছে এমন একটি গাড়ির ভেতরে অবস্থা প্রায় নতুন এর মতো থাকবে। ৩০,০০০ বা তারও বেশি মাইল চলেছে এমন গাড়ির স্টিয়ারিং হুইল, সিট্ এবং পাশের বল স্টার গুলি বেশ পুরাতন হয়।

গাড়ি সজ্জার সামগ্রীগুলি ছিদ্র, নড়বড়ে বা একটু বিবর্ণ মনে হতে পারে। ধূমপায়ীদের গাড়ির আসনগুলি যে কোনো জায়গায় পোড়া দেখতে পারেন। আপনি যদি এর ভেতর কোনো সমস্যা দেখেও গাড়ি নিতে চান তবে মেরামত করার জন্য কিছু টাকা দাবি করতে পারেন।

বৈদ্যুতিন উইন্ডোজগুলি কি একই গতিতে খোলে এবং শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার কি অবস্থা (এটি শীতের সময় ভিন্ন আচরণ করবে) । সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল লাইট থেকে শুরু করে এয়ার কন্ডিশন পর্যন্ত সমস্ত ইলেকট্রিক ব্যবস্থা যেমন উইন্ডোজ, সানরুফ, রেডিও এবং কেন্দ্রীয় লকিংয়ের জন্য সমস্ত সরঞ্জামের কাজগুলি পরীক্ষা করবেন। আপনি যদি কোনো সমস্যা দেখতে পান তবে মেরামত করার জন্য টাকা খরচ এর হিসাবটা মাথায় রাখতে হবে।

বুট

লাগেজ যেখানে রাখে, আপনি দেখতে পাচ্ছেন যে গাড়ীর কোনও পূর্ণ আকারের স্পিয়ার হুইল, স্পেস-সেভার বা কেবল একটি ফেনার ক্যান পাওয়া গেছে কিনা। নিশ্চিত হয়ে নিন যে বুট কার্পেটটি শুকনো রয়েছে এবং ফুটওয়াল কার্পেটের জন্য সামনের এবং পিছনে উভয়ই একই কাজ করুন। সিট ভাঁজ করার প্রক্রিয়াটি সঠিকভাবে কাজ করছে এবং আপনার প্রয়োজনীয় স্থান আছে তাও পরীক্ষা করা ভাল।

মাইলেজ এবং সতর্কতা আলো

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars
used car

ড্রাইভারের সিটে ইগনিশনটি চালু করুন। এখানে আপনি সতর্কতা বাতি গুলি পরীক্ষা করতে পারবেন, সাথে সাথে এটিও নিশ্চিত হউন যে গাড়ীটির মাইলেজ কত রয়েছে। সম্ভাব্য ‘ক্লকড’ মোটরগুলি থেকে সাবধান থাকুন।অতিরিক্ত সিট এবং ওডোমিটার রিডিংয়ের সাথে গিয়ারস্টিক অসঙ্গতি যুক্ত হলে মাইলেজ ঝামেলা আছে বুজতে হবে।

ইলেক্ট্রনিক্স

গাড়ি ক্রমবর্ধমান প্রযুক্তিতে লোড হয় এবং এটি বেশ সহজেই ভুল হতে পারে। আপনার গাড়ির হালকা আলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ইলেকট্রনিক ডিভাইস, সুতরাং তারা সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা তা নিশ্চিত হন। কুয়াশাযুক্ত লেন্স বা অসম বিমগুলি সমস্ত সতর্কতার লক্ষণ হওয়া উচিত, তাই আপনার গাড়ির লাইট যখন ম্লান হয়ে যাবে তখন আপনাকে বাল্ব পরিবর্তন করতে হবে। এছাড়াও দেখুন যে রেডিও, ইনফোটেইনমেন্ট সিস্টেম, এয়ার কন্ডিশন, উইন্ডোজ, কেন্দ্রীয় লকিং এবং অন্য যে কোনও গ্যাজেট বিজ্ঞাপনে উল্লেখ করা আছে তা ঠিক মতো কাজ করছে।

গাড়ির মাইলেজ:

 মাইলেজ হলো, গাড়ীটি প্রতি লিটারে যে দূরত্বটি কভার করতে পারে তা। একটি গাড়ি যা প্রতি লিটারে অনেক কম মাইল যায়, তবে সেটি আপনার জন্য ব্যয়বহুল হবে। মাইলেজে গাড়িটি কত টুকুন পিছিয়ে আছে তা আপনি জানতে পারবেন যখন একটি ওই একই সিসির নতুন অন্য একটি তেলের গাড়ির দক্ষতা জানতে পারবেন। তবে বেশি সিসির গাড়ি বেশি তেল খায়, তাই ১৫০০ সিসির বেশি গাড়ি কিনবেন না তাতে তেল অনেক বেশি খাবে। তাছাড়াও ট্যাক্স থেকে শুরু করে যন্ত্র পাতি সব কিছুরই খরচ বেশি পড়বে।

গাড়িটি একটু চালিয়ে দেখুন

used cars buy used car online second hand cars buy second hand car cheap second hand cars buy 2nd hand cars buy second hand 2nd hand car price used car buying tips and tricks tips and tricks to buying a used car buying a secondhand car checklist second hand car checklist things to check before buying a second hand car buying used cars government used cars bank used cars old car buying an old car vintage cars

ভিজ্যুয়াল চেক সম্পন্ন হওয়ার সাথে, পরবর্তী মূল পদক্ষেপটি হলো একটি পরীক্ষা মূলক ড্রাইভিং। আশ্চর্যজনক ভাবে, অনেক ক্রেতাই এই কাজটি করে না, তবে এটি সত্যই আবশ্যক। যে কোনও ভাল ব্যবসায়ী আপনার সাথে ড্রাইভে যেতে পেরে খুশি হবে। যানবাহনটি বিভিন্ন গতিতে চেষ্টা করুন এবং ইঞ্জিনের শব্দ এবং কোনও বিরক্তিকর ঝাঁকুনি লক্ষ করুন। ব্রেক এবং ক্লাচটিও প্রতিক্রিয়াশীল এবং সম্পূর্ণ কার্যক্রমে রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করুন।

কোন গাড়ি যদি শেষ পর্যন্ত আপনার পছন্দ হয়েই যায়, তবে অবশ্যই একজন মেকানিককে সাথে নিয়ে যাবেন, অর্থাৎ ইন্জিন, সাসপেনশন এগুলোর মেরামতের কাজ করে করে এমন মেকানিক, প্রয়োজনে তাকে কিছু পেমেন্ট করুন সময় দেওয়ার জন্য।

ব্যবহৃত গাড়ী ডকুমেন্টেশন

Used car কেনার সকল কাগজ পত্র ও রশিদ সমূহ খুব ভালো মতো পরীক্ষা করবেন। এইগুলা আপনাকে গাড়ির ইতিহাস পরীক্ষা করতে সক্ষম করে। এছাড়াও এটি আপনাকে ড্যাশবোর্ডে যা প্রদর্শিত হয়েছে তার বিপরীতে মাইলেজ পরীক্ষা করতে সহায়তা করে। পরিষেবা বইটিও একটি মূল্যবান দলিল, আপনি দেখতে পারেন গাড়িটি কখন কখন সার্ভিসিং করেছিল। যা গাড়ির প্রতি পূর্ববর্তী মালিকের যত্নের বহির প্রকাশ।

লগবুক পরীক্ষার নিয়ম:

আপনার জানা দরকার অতীত সম্পর্কে, তাই সকল শংসাপত্র গুলি একবার দেখুন। মাইলেজটি প্রতি বছর প্রায় একই পরিমাণে বাড়বে। মাইলেজটি যদি হঠাৎ কমে যায় তবে ধরে নিবেন যে মাইলোমিটারকে টেম্পারিং করা হয়েছে।

একবার আপনি এই সমস্ত কাজটি শেষ করার পরে, গাড়ির ইতিহাস পরীক্ষা ( HPI ) করা সত্যিই ভাল উপায় হতে পারে চোরাই গাড়ি বের করতে। এটি আপনাকে বলবে যে গাড়িটি বকেয়া অর্থের সাপেক্ষে বা চুরি হিসাবে রেকর্ড করা হয়েছে অথবা কোনো অপরাধ মূলক কার্যক্রম এর সাথে জড়িত ছিল কিনা।

বাজারটি চুরি হওয়া যানবাহনে ভরা এবং এটি অসম্ভবও নয় যে আপনার কাছে এটি বিক্রি করার চেষ্টা করতে পারে। অনেক সময় দাম যুক্তিসঙ্গত মূল্য থেকেও অনেক কম বলে, সেক্ষেত্রে আপনার আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করে ঝামেলাটা খুঁজে বের করার চেষ্টা করা ভালো, দাম খুব কম বা খুব বেশি হবে না। বিক্রির জন্য চুরির Used Car হ’ল একটি বিশাল বাণিজ্য যা বহু লোককে পথে বসিয়েছে। তাই আমি আপনাকে এই ঝামেলা থেকে বাঁচাতে চাই। দেখি কি কি দেখতে হবে :

নিবন্ধন

যানবাহনের নিবন্ধনটি সঠিক কিনা তা নিশ্চিত করুন। নিবন্ধের তারিখ এবং গাড়ির সাথে ম্যাচ করে অন্যান্য বিষয় ও অবশ্যই চ্যাসিস নম্বরটি পরীক্ষা করে দেখুন।

কর

নিশ্চিত করুন যে করের দস্তাবেজ প্রদত্ত অর্থ ঠিক মতো দেওয়া হয়েছে। টাকা জমা দেওয়ার তারিখটি পরীক্ষা করে দেখুন এবং আগের কোনও বকেয়া টাকা রয়েছে কিনা তা যাচাই করুন।



বীমা

নিশ্চিত করুন যে বীমা এবং অন্যান্য কাগজপত্রগুলি যা বিক্রেতার জন্য প্রযোজ্য হবে তা আপনার জন্য সমস্যা হয়ে উঠছে না। সুতরাং সমস্ত অর্থ দিয়ে দায় মুক্ত হয়ে গেছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন।

ফিটনেসের শংসাপত্র

গাড়ীটির বৈধ ফিটনেস শংসাপত্র রয়েছে তা নিশ্চিত করুন। প্রতিটি যানবাহন, এটি ব্র্যান্ডের নতুন গাড়ি বা এমনকি ব্যবহৃত গাড়িগুলি ফিটনেস পাস করার প্রয়োজন। বৈধতার তারিখের শংসাপত্র পরীক্ষা করুন।

চালান এবং অন্যান্য

যদি সম্প্রতি মেরামত করা হয় তবে ওয়্যারেন্টি এবং অন্যান্য উদ্দেশ্যে বিক্রেতার কাছ থেকে চালানের কপি দেখতে চাইতে পারেন।

গাড়ির শর্ত অনুযায়ী দাম নিয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করুন। যদি গাড়ির কিছু তাত্ক্ষণিক মেরামতের প্রয়োজন হয়, ফলস্বরূপ দাম কমিয়ে দিন। আপনি যদি একা আলোচনায় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন না তবে কোনও বন্ধু বা আত্মীয়কে সহায়তা করতে বলুন। তবে মনে রাখবেন পরিচিত যারা অনেক দিন ধরে গাড়ি চালাচ্ছে অর্থাৎ যাদের হাতে একটি গাড়ির বয়স কমপক্ষে প্রায় ৩/৪ বছর হয়ে গেছে তারা হয়তোবা এই সম্পর্কে কিছুটা ধারণা রাখে।

গাড়ী কাগজ পত্রের জন্য যা খরচ

বাংলাদেশে একটি ১৫০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির জন্য প্রতি বছরে আপনাকে ফিটনেস এর জন্য গুনতে হবে ১৫,০০০ টাকার মতো, এটা এ্যাডভান্স ইনকাম ট্যাক্স ও বটে। “ট্যাক্স টোকেন” এর জন্য প্রতি বছরে রিনিউ করতে দিতে হবে ৫,৮০০ টাকা। ৫০০ টাকা প্রতি বছরে ইন্স্যুরেন্সে যাবে । অর্থাৎ একটি ১৫০০ সিসির গাড়ির খরচ কম বেশি ২৩,০০০ টাকা শুধু ডকুমেন্টস্ এর জন্য।

১৫০০ থেকে ২০০০ সিসির গাড়িতে প্রায় ৩০ হাজার টাকা ট্যাক্স দিতে হয়। সিসি যদি বাড়ে তবে খরচ আরো বাড়বে।

একই রকম দুটি গাড়ি একই রাস্তা ও একই দূরত্ব ও একই জ্বালানিশক্তি ব্যবহার করে, কিন্তু শুধু ড্রাইভার বা চালকের কারণে দুটি গাড়ির পার্ফমেন্স পরিবর্তণ হয়ে যাবে।

একটি কথা মনের ভেতর গেথে নিন গাড়ি কিন্তু সবাই বোঝেনা। যিনি কিনা এলিয়ন বা প্রিমিও ব্যবহার করে থাকেন, তার উপর ভরসা করে used car to buying করতে যাবেন না, বিপদে পড়বেন, সে আসলে গাড়ির কিছুই বুঝবেনা। Used Car যে পুষেছে তারই ঐটা সম্পর্কে ভালো জানার কথা যে কোথায় কি লাগবে, আর জানবে মেকানিক।

অনেকেরই গাড়ি সম্পর্কে অনেক ভালো অভিজ্ঞতা আছে। তারা নিজেই নিজের Used Car তৈরী করে ফেলতে পারে। তার উদাহরণও কিন্তু আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button