করোনাভাইরাস

করোনাভাইরাস ভ্যাকসিন সম্পর্কে আপনার যা জানা দরকার – Coronavirus Vaccine

করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে ওষুধ প্রস্তুতকারীদের বাজারে একটি ভ্যাকসিন আনার জন্য চাপ চলছে। তবে এটি এত সহজ নয়।
চীনে করোনা ভাইরাস উদ্ভূত হওয়ার পরে চার মাসেরও কম সময় হয়েছে, এটি জ্বর, কাশি এবং গুরুতর ক্ষেত্রে নিউমোনিয়া সৃষ্টি করে। তারপর থেকে, নানা দেশে ওই রোগটি ছড়িয়ে যাচ্ছে, বহু মানুষ মারা যাচ্ছে।
বিশ্বজুড়ে বিভিন্ন দেশগুলিতে ভ্রমণকারীদের নিষিদ্ধ করার জন্য বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসকে ভীষণ ভয়ঙ্কর করে তোলে আসল কথা হলো এটি অতটা মারাত্মক নয়। এখনও অবধি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা কোভিড -১৯ এর মৃত্যুর হার বিশ্বব্যাপী প্রায় ৩.৪ শতাংশ বলে অনুমান করেছে তবে এটি খুব সংক্রামক। তবুও, বেশিরভাগ লোকেরা যারা কোভিড -১৯ পেয়েছেন তারা হাসপাতালে ভর্তির প্রয়োজন ছাড়াই এক বা দু’সপ্তাহে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। মানুষেরা আতঙ্কিত হয়েছেন কারণ এটি নতুন এবং এখনো এটির কোনো কার্যকর প্রতিষেধক তৈরি হয় নাই।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য উন্নত দেশগুলির মানুষেরা এই রকম রহস্যময় অসুখে পড়ে না। উন্নত দেশের মানুষেরা প্রতিটি রোগের উত্তর পেতে অভ্যস্ত এবং অসুস্থ না হওয়ার জন্য একটি পরিকল্পনা তাদের থাকে। ওই দেশগুলোতে এমন কি আমাদের দেশেও ভ্যাকসিনগুলি পোলিও , হেপাটাইটিস এবং হাম রোগ সহ ছড়িয়ে পড়া সংক্রামক রোগগুলি প্রায় মুছে ফেলেছে । নিরাপদ এবং কার্যকর ভ্যাকসিনগুলি আবিষ্কার করতে সময়, বিনিয়োগ এবং ভাল বিজ্ঞান লাগে। করোনাভাইরাসের জন্য একটি ভ্যাকসিন আবিষ্কার আরও চ্যালেঞ্জের সাথে আসে। তবে কমপক্ষে ৪০ টি সংস্থা এবং প্রতিষ্ঠান অক্লান্ত পরিশ্রম করছে। তাই আমরা বলতে পারি যে কোনো সময় এই পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে।

One Comment

  1. এই নকশা দর্শনীয়!
    আপনি অবশ্যই
    জানেন কিভাবে একজন পাঠককে আনন্দিত রাখতে হয়। আপনার
    বুদ্ধি এবং আপনার ভিডিওগুলির মধ্যে, আমি আমার নিজের ব্লগ শুরু করতে প্রায় অনুপ্রাণিত হয়েছিলাম (ভাল, প্রায়? হাহা!) চমৎকার কাজ।

    আপনি যা বলতে চান তা আমি সত্যিই পছন্দ করেছি এবং তার চেয়েও বেশি, আপনি কীভাবে
    এটি উপস্থাপন করেছেন। খুব ভালো!

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button