বাংলাদেশ

ই-কমার্স ব্যবসা

সাধারণত একটু পিছিয়ে পড়া দেশের ভেতর ব্যবসা করে লাভ বের করে আনা সহজ। আমেরিকা, চীন এই নীতিতে চলে।

ই-কমার্স ব্যাবসার সম্ভাবনা সম্পর্কে জানার আগে, আমাদের ওই দেশের সামাজিক ও মানুষের জীবনমান সম্পর্কে কিছু ধারণা নিয়ে নেওয়া ভালো।

দুর্নীতি:

বলিভিয়ায় দুর্নীতি একটি বড় সমস্যা। এটি বলিভিয়ার সমাজের সর্বস্তরে পাওয়া যাবে। দেশের নাগরিকরা বিচার বিভাগ, পুলিশ এবং জনপ্রশাসনকে সাধারণত দেশের সবচেয়ে দুর্নীতিগ্রস্থ বলে মনে করেন। অবৈধ মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণকারী এবং নিষ্ক্রিয় করার কাজে যারা কাজ করে তাদের মধ্যেও দুর্নীতি ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে রয়েছে। অনেক বলিভিয়ানরা অশিক্ষিত এবং তাই নাগরিক হিসাবে তাদের অধিকার বা দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে সকল আইন রয়েছে সে সম্পর্কে অসচেতন।

 

ধর্মীয় স্বাধীনতা:

বলিভিয়ার সংবিধান ধর্মের স্বাধীনতা গির্জা এবং রাষ্ট্রের মধ্যে পৃথকীকরণকে প্রতিষ্ঠিত করে। সংবিধান ধর্মীয় ভিত্তিতে বৈষম্যকে নিষিদ্ধ করেছে, যা বলিভিয়ার পরিবেশকে ব্যবসা বান্ধব করে তুলেছে।

 

বলিভিয়ার সংস্কৃতি:

বলিভিয়ার সমাজে স্পেনীয় বংশোদ্ভূত লোক, উপনিবেশকারীদের বংশধর আন্দিস ও মেস্তিজোদের আদিবাসী গোষ্ঠী রয়েছে, তারা ওই সকল জাতির মিশ্রণ।

সামাজিক সমস্যা এবং নিয়ন্ত্রণ:

স্থানীয় পর্যায়ে এবং আত্মীয়দের মধ্যে সামাজিক নিয়ন্ত্রণটি অনানুষ্ঠানিকভাবে প্রয়োগ করা হয়, পুলিশ এবং বিচার বিভাগের এখানে জায়গা নাই। গ্রামগুলিতে নিজেদের সমস্যা বা বিরোধ তাদের নিজেদের নির্বাচিত কর্মকর্তাদের দ্বারা অভ্যন্তরীণভাবে নিষ্পত্তি হয়।  তারা প্রচলিত রীতি অনুসরণ করে। অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় ও কোকেনযুক্ত সিগারেটের ব্যবহার ব্যাপক ভাবে বেড়ে চলেছে। যা তাদের সমাজের সকল স্তরে সমস্যার সৃষ্টি করছে।

আন্তঃব্যক্তিক সহিংসতা বিরল, যদিও কিছু ঘরোয়া সহিংসতা রয়েছে। সংবিধানের অধিকার এবং জটিল বিচার ব্যবস্থা সম্পর্কে কম লোকেরই সম্পূর্ণ ধারণা রয়েছে। স্থানীয় ও বিভাগীয় আদালত ছাড়াও সরকার বিশেষ মাদক ট্রাইব্যুনাল গঠন করেছে। আমলাতান্ত্রিক পদ্ধতিগুলিকে আরও সহজ করার জন্য বিচার বিভাগীয় শাখাটি পুনর্গঠন করা হচ্ছে।

 

বলিভিয়াউচ্চ শিক্ষা ব্যবস্থা:

বলিভিয়ার উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থাটি ৩৯৮ টি স্টাডি প্রোগ্রাম সহ ৩৯ টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিত্ব করে। এছাড়াও ৩৯ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫৫৮ ব্যাচেলর প্রোগ্রাম, ২৪ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২১৯ টি মাস্টার্স প্রোগ্রাম এবং ৭ টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ৫১ টি পিএইচডি প্রোগ্রাম রয়েছে। বলিভিয়ায় ১৯৯৯ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত বেকারত্বের হার ছিল প্রায় ৩.৪৫ শতাংশ।

 

জীবনধারা:

বলিভিয়ার বেশিরভাগ জনগোষ্ঠী অনুপযুক্ত পরিবেশে জীবনযাপন করে, যেহেতু তারা নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে নির্মিত বাড়িতে বাস করে, তাই সাধারণ সেবা গুলো খুব কম পায়। (যেমন বিদ্যুৎ, পানীয় জল এবং নর্দমা ব্যবস্থা)।

 

বিজ্ঞান প্রযুক্তি:

লাতিন আমেরিকার দেশগুলির ভিতরে বলিভিয়ার মানুষের চিন্তাভাবনা সবচেয়ে আজব। তাদের মতে, বলিভিয়ার জনগোষ্ঠী যারা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে না এবং বিশ্বাস করে না, তারা প্রথম অবস্থানে রয়েছে।

এক সমীক্ষায় তাদেরকে বলা হয়েছিল: “পরবর্তী প্রজন্মের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির জন্য আরও বেশি সুযোগ থাকা উচিত”। মানুষ উত্তর দিয়েছে যে, “ দৈনন্দিন জীবনে বিজ্ঞান সম্পর্কে জানা গুরুত্বপূর্ণ নয়।“

কিছু মানুষ বিশ্বাস করে যে, তারা বিজ্ঞানের উপর অনেক বেশি নির্ভশীল হয়ে উঠছে কিন্তু অদৃষ্টের উপর যথেষ্ট বিশ্বাস নাই। তারা বিজ্ঞানের একটি নেতিবাচক পরিণতি বিবেচনা করেন, তা হ’ল এটি লোককে ভাল-মন্দ সম্পর্কে তাদের ধারণা হারাতে সাহায্য করে। কিন্তু বলিভিয়ায় ১০ জনের মধ্যে নয় জন সেলফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করে। রাষ্ট্রীয় টেলিযোগাযোগ ও পরিবহন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের তথ্য অনুসারে, ১১ মিলিয়ন জনসংখ্যার মধ্যে বলিভিয়ার ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৯০.৬  শতাংশ, তবে, ৯০% এরও বেশি সংযোগগুলি মোবাইলে, যা তাদের নিজেদের বাড়িতে ব্যবহার একটু সীমাবদ্ধ।

বলিভিয়ায় কমার্স ব্যাবসার সম্ভাবনা

বলিভিয়ার ই-কমার্স বৃদ্ধি :

যদিও বলিভিয়ার জনসংখ্যার মাত্র ৪৪% এর বেশি লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করে, এটি এক বছর আগে ৩৯% ছিল। যেহেতু বলিভিয়ায় ইন্টারনেট অ্যাক্সেস এবং ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে, তেমনি ই-কমার্সের পরিমাণও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

যেহেতু বলিভিয়ার গ্রাহকরা ইন্টারনেটের সাথে আরও পরিচিত হয়ে উঠছে এবং মোবাইল ডিভাইস ও কম্পিউটারের  জনপ্রিয়তা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে।  আর তাই, বলিভিয়ানরা অনলাইনে পণ্য এবং পরিষেবা অনুসন্ধান করা আরও সহজ ভাবে দেখছে এবং শিখছে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে, অনলাইন মার্কেটপ্লেসে আস্থা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং বলিভিয়ায় আরও বেশি লোক অনলাইনে আইটেম কিনতে আগ্রহী।

কারণ স্থানীয় বাজারে মজুতের অভাব, ভাল দাম এবং সরবরাহের গতি বলিভিয়ার গ্রাহকদের ইকমার্সের দিকে নজর দিতে  বাধ্য করছে। এই গ্রাহকরা বিশেষত ইলেক্ট্রনিক্স, স্ট্রিমিং পরিষেবা, বই, চলচ্চিত্র এবং বিনোদনের অন্যান্য ধরণের জন্য অনলাইন বাজারের দিকে ঝুঁকছেন। বলিভিয়ার ইকমার্সের ৬৩% গ্রাহক অনলাইনে ইলেকট্রনিক্স কেনেন এবং ৫৩% তাদের সঙ্গীত, চলচ্চিত্র এবং গেম স্ট্রিমিং পরিষেবাগুলির জন্য টাকা ইন্টারনেট প্ল্যাটফর্ম এ ব্যবহার করেন।

 

জন্য চ্যালেঞ্জ এবং বাধা:

ব্যাংকিং

ব্যাংকিং ইকমার্স প্রবৃদ্ধির মূল সূচক এবং বলিভিয়ার জনসংখ্যার মাত্র ৫০% মানুষের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। তার প্রায় ৬% এর একটি ক্রেডিট কার্ড রয়েছে। যদিও ইকমার্সের বৃদ্ধির সম্ভাবনা বেশি কিন্তু অনলাইনে ক্রয়ের জন্য ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বা ক্রেডিট কার্ড ব্যবহারকারীর অনলাইন থেকে কিনতে বাধা প্রদান করে।

 

ইতিবাচক খবর:

টুমারকাডাজোর মতো প্ল্যাটফর্ম আমেরিকান খুচরা বিক্রেতারা এবং বলিভিয়ার ক্রেতাদের মধ্যকার ব্যবধান দূর করতে সাহায্য করেছে, ক্রেতারা বলিভিয়ার যেখানেই থাকুক না কেন এবং একাধিক চ্যানেলের মাধ্যমে কেনাকাটা করতে এবং নগদসহ বিভিন্ন ডিজিটাল অর্থ প্রদান করতে সহায়তা করে। এ মতো ইকমার্স প্ল্যাটফর্মগুলির বিকাশের সাথে বলিভিয়ার লোকেরা ডেবিট কার্ড না থাকলেও অনলাইনে নিরাপদ কেনাকাটা করতে সক্ষম।

পেপাল:

অনলাইনে পণ্য ক্রয় এবং অর্থ প্রদান আরও সহজ হয়ে উঠেছে, যা বলিভিয়ার ইকমার্সকে উত্সাহিত করতে সহায়তা করেছে। গ্রাহকরা পেপালের সাথে ডেবিট কার্ডগুলি লিঙ্ক করতে পারেন, বলিভিয়ায় অনলাইনে কেনাকাটা করতে পারে। এই পরিবর্তনগুলি আরও বলিভিয়ায় ইকমার্স বাড়াতে সাহায্য করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button